দ্বন্দ্বের অবসান: স্বামীর সঙ্গে ন্যান্সি

0
328
প্রিন্ট

প্রায় দুই মাস আলাদা থাকার পরে স্বামীর সঙ্গে মানবিক দ্বন্দ্বের অবসান ঘটিয়ে এক হয়ে গেছেন ন্যান্সি ও জায়েদ। এর কিছুদিন আগে তাদের সংসার ভাঙার গুঞ্জনও ছড়ায় মিডিয়াতে। এবার ন্যান্সি জানালেন, সংসার জীবনে ভুল বোঝাবুঝি আর মান-অভিমানের মত একটু-আধটু হতেই পারে, তবে এসবের পালা শেষ করে আবারও তিনি তার স্বামীর সাথে এক ছাদের নিচে বসবাস শুরু করেছেন।

এ প্রসঙ্গে ন্যান্সি আরও বলেন, ‘আমরা মনের দিক থেকে একই ছিলাম। দু’জনের প্রতি দু’জনের ভালোবাসার কমতি ছিলনা কখনই। জায়েদ বেশি ভালো মানুষ। তার সঙ্গে আমি প্রায়ই মান-অভিমান করতাম। সে রাগের কথা বললেও রাগ করে না, এটাও তার প্রতি আমার অভিমানের একটা কারণ। যাই হোক, অভিমানের পালা শেষ। অতঃপর আমরা সুখে-শান্তিতে বসবাস করতে শুরু করেছি।

২০০৬ সালে হৃদয়ের কথা চলচ্চিত্রের গান গেয়ে তার সঙ্গীত জীবন শুরু করেন ন্যান্সি। ২০১১ সালে ‘প্রজাপতি’ চলচ্চিত্রের গানে কণ্ঠ দিয়ে তিনি প্রথমবারের মতো জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান। হালের জনপ্রিয় এই কণ্ঠশিল্পী ২০০৬ সালে ভালোবেসে বিয়ে করেন ব্যবসায়ী আবু সাঈদ সৌরভকে। কিন্তু দুঃখের বিষয় বছর কয়েক না যেতেই সংসারে ভাঙনের কথা শোনা যায়। এরপর ২০১২ সালের ২৪ মে ছয় বছরের সংসার জীবনের অবসান ঘটান ন্যান্সি। সেই সংসারে রোদেলা নামে তাদের এক মেয়ে আছে।

এর পর ২০১৩ সালের ৪ মার্চ ন্যান্সি আবার বিয়ে করেন নাজিমুজ্জামান জায়েদ কে। স্বামী নাজিমুজ্জামান জায়েদ ময়মনসিংহ পৌরসভায় চাকরি করেন এবং ব্যবসার সঙ্গেও জড়িত। জায়েদ এবং ন্যান্সির এই সংসারেও নায়লা নামে একটি কন্যাসন্তান রয়েছে। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ন্যানসি-জায়েদকে প্রায়ই একসঙ্গে দেখা গেছে।

এছাড়া কিছুদিন আগে জায়েদ ন্যানসিকে (ন্যান্সির জন্মদিনে) ২৫ লাখ টাকা (৫ শতাংশ) মূল্যের জমি উপহার দেন। নাজিমুজ্জামান জায়েদের বাড়ি ময়মনসিংহে।