অবৈধ হ্যান্ডসেট শনাক্ত করতে আইএমইআই ডাটাবেজ উদ্বোধন আজ

0
119
প্রিন্ট

অবৈধ মোবাইল হ্যান্ডসেটের দিন শেষ! এখন থেকে আর নতুন কোনো অবৈধ সেটে সিমকার্ড চালু হবে না। নকল বা অবৈধ মোবাইল ফোন শনাক্ত করতে আজ মঙ্গলবার বিটিআরসিতে আইএমইআই (ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল ইকুইপমেন্ট আইডেন্টিটি) ডাটাবেজের উদ্বোধন করবেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

মোবাইল ফোন অপারেটরদের কাছ থেকে প্রত্যেক গ্রাহকের তথ্য নিয়ে ডাটাবেজে ঢোকানো হয়েছে। এই ডাটাবেজটি মোবাইল ফোন ইমপোর্টার্স এসোসিয়েশন তৈরি করলেও এটা নিয়ন্ত্রণ করবে বিটিআরসি। ইতোমধ্যে বিটিআরসিতে ডাটাবেজ বসানো হয়েছে। এটা হালনাগাদও সম্পন্ন হয়েছে।

বিটিআরসির এক কর্মকর্তা জানায়, আজ এ ডাটাবেজের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হতে যাচ্ছে। আইএমইআই ডাটাবেজ থেকে পরীক্ষা করে দেখা হবে কোন কোন নম্বর (আইএমইআই) নকল। তখন নকল আইএমইআই ব্যবহার হওয়া ফোনগুলো বন্ধ করে দেওয়া হবে। চুরি বা হারানো মোবাইল ফোন আর কেউ ব্যবহার করতে পারবে না। এছাড়া অন্যান্য সেবাও তিনি নিতে পারবেন।

কারও ফোন চুরি বা ছিনতাই হয়ে থাকলে এবং সেই হ্যান্ডসেটটি বাংলাদেশে বৈধভাবে আমদানি বা তৈরি করা হয়ে থাকলে এই ডাটাবেজ ব্যবহার করে তিনি সেটি বন্ধ বা লক করে দিতে পারবেন। ফোনটি ফেরত পাওয়ার পথও তৈরি হবে। এই ডাটাবেজ তৈরি হবে বৈধভাবে আমদানি করা ও দেশে তৈরি সব মোবাইল হ্যান্ডসেটের ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল ইকুইপমেন্ট আইডেনটিটি বা আইএমইআই নম্বর নিয়ে।

আইএমইআই নম্বর হলো একটি ফোন সেটের শনাক্তকারী নম্বর। ফোন প্রস্তুতকারক কোম্পানি ওই নম্বর দিয়েই ব্যবহারকারীর সব তথ্য সংরক্ষণ করে। কোনো ফোন হারিয়ে গেলে ওই নম্বরটি দিয়ে সেটি ট্র্যাক করা যায়।

প্রত্যেকটি মোবাইল ফোন সেটেই ১৫ ডিজিটের একটি আইএমইআই নম্বর থাকে। গ্রাহক *#০৬# ডায়াল করলেই এই আইএমইআই নম্বর ভেসে উঠে। এই নম্বরটি ১৬০০২ নম্বরে এসএমএসের মাধ্যমে পাঠালে ফিরতি এসএমএসে জানা যাবে সেটটি বৈধ না অবৈধ। বর্তমানে গ্রাহকের হাতে থাকা সবগুলো সেটই ডাটাবেজে উঠে গেছে।

দুটি আসল ফোনের আইএমইআই নম্বর কখনও এক হয় না। নকল ফোনে আইএমইআই নম্বর থাকে না, থাকলেও সেটি হয় জাল। সন্ত্রাসী ও অপরাধমূলক কর্মকান্ডে এ ধরনের আইএমইআই নম্বরবিহীন সেটই বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। আর আইএমইআই ডেটাবেজ চালু হলে মোবাইল ফোনের অপব্যবহার ও অপরাধ কমে যাবে বলে আশা করছেন সংশ্নিষ্টরা।