বালিকা বিদ্যালয়ে ‘স্বপ্ন নিয়ে’র নির্মিত শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন

0
345
প্রিন্ট

আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি। মহান ভাষা শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। ইট-পাথরে নির্মিত শহীদ মিনারের বেদীতে এবারই প্রথম ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানালো লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার রামগতি আছিয়া বালিকা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ও রামগতি বালিকা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও এগারো শতাধিক শিক্ষার্থী। ১৯৬৮ সালে প্রতিষ্ঠিত এই বিদ্যালয় দুটির শিক্ষার্থীদের দীর্ঘ দিনের স্বপ্নপূরণে এগিয়ে এসেছে স্বেচ্ছাসেবী প্লাটফর্ম ‘স্বপ্ন নিয়ে’।
শ্রদ্ধা নিবেদন আনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রামগতি আছিয়া বালিকা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুর রাজ্জাক, রামগতি বালিকা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ হেলাল উদ্দিনসহ উভয় স্কুলের শিক্ষকবৃন্দ, ‘স্বপ্ন নিয়ে’র প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি আশরাফুল আলম হান্নান, সাধারণ সম্পাদক মীর তানভীর আহমেদ, সমন্বয়ক (স্বাস্থ্য) আরাফাত হোসেন, সমন্বয়ক (ব্লাড) নোমান সিদ্দিক, সদস্য আবদুর রশিদ, সদস্য ডা.এইচ এম হারুন।

‘স্বপ্ন নিয়ে’র প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি আশরাফুল আলম হান্নান বলেন, শহীদ মিনারটি নির্মানে খরচ যাই হোক এর ব্যাপকতা অনেক। শিক্ষার্থীদের দেশীয় সংস্কৃতি, ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানাতে এবং বিভিন্ন ভাবে সামাজিক উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে “স্বপ্ন নিয়ে”। সমাজে সবকিছু সরকার করে দিবে এ ভাবনাটি ঠিক নয়, সবাই যার যার অবস্থান থেকে এগিয়ে এলেই অন্যরকম একটি সমাজ তথা দেশ গড়ে উঠতে পারে।
শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন শেষে উপস্থিত সবাইকে শপথবাক্য পাঠ করান রামগতি আছিয়া বালিকা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক গোলাম সওকত এমরান।