এলএনজি সরবরাহ বাড়ায় স্বস্তিতে চট্টগ্রামবাসী

0
109
প্রিন্ট

তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) সরবরাহের পরিমাণ বৃদ্ধি পাওয়ায় চট্টগ্রামে আর গ্যাস সঙ্কট নেই ফলে স্বস্তিতে রয়েছে চট্টগ্রামবাসী। দেশের এই প্রথম কোন অঞ্চল, হিসেবের চাহিদা অনুযায়ী গ্যাস সরবরাহ পাচ্ছে চট্টগ্রাম ও পার্বত্য চট্টগ্রামের ৫ লাখের বেশি গ্রাহক।

গত মার্চে পেট্রোবাংলার দেয়া হিসাব অনুযায়ী ৪০৩ মিলিয়ন ঘনফুট এলএনজি ১ মার্চ দেশে সরবরাহ করা হয়েছে। পরদিন থেকেই প্রতিদিন ৫শ’ মিলিয়ন ঘনফুটের বেশি এলএনজি সরবরাহ করা হয়েছে। এর মধ্যে ১৪ মার্চ এলএনজির সরবরাহ কিছুটা কম হলেও সরবরাহ ৪৮৪ মিলিয়ন ঘনফুটের নিচে আসেনি। এছাড়া প্রতিদিনই  ৫শ’ মিলিয়ন ঘনফুটের বেশি এলএনজি সরবরাহ করা হয়েছে। এর মধ্যে ২৩ মার্চ সর্বোচ্চ ৫৩৪ মিলিয়ন ঘনফুট এলএনজি সরবরাহ করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এর আগে চট্টগ্রাম এলাকায় চাহিদার অর্ধেক গ্যাস সরবরাহ থাকায় চট্টগ্রামের বিভিন্ন শিল্প খাতে স্থবিরতা নেনে এসেছিল। এমনকি বিদ্যুত উৎপাদন কেন্দ্র, সারকারখানা গ্যাস সঙ্কটের কারণে দিনের পর দিন উৎপাদন বিঘ্ন হতো। গত আগস্ট থেকে এলএনজি সরবরাহ শুরু হলে চট্টগ্রামে গ্যাস ঘাটতি কমতে থাকে। মার্চে এসে তা একেবারে পূর্নতা পায়। এখন চট্টগ্রামকে চাহিদার পুরো গ্যাস সরবরাহ দেয়া হচ্ছে  বলে জানিয়েছে পেট্রোবাংলা।

চট্টগ্রাম ও পার্বত্য চট্টগ্রামে গ্যাস সরবরাহকারী কর্ণফুলী গ্যাস বিতরণ কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক খয়েজ আহমেদ মজুমদার  বলেন, আমাদের চাহিদা প্রতিদিন ৫শ’ মিলিয়ন ঘনফুটের মতো। কিন্তু চট্টগ্রামের দুই সারকারখানা বন্ধ থাকায় এখন প্রতিদিন চাহিদা একশ’ মিলিয়ন ঘনফুট কমে ৪শ’ মিলিয়ন ঘনফুটে দাঁড়িয়েছে। এর পুরোটাই সরবরাহ পাওয়া যাচ্ছে বলে জানান তিনি। তার এলাকায় এখন আর কোন গ্যাস সঙ্কট নেই বলে তিনি দাবি করেন।

গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি জিটিসিএল বলছে এখন চট্টগ্রামে গ্যাস সরবরাহের পর বাকিটা জাতীয় গ্রিডে ঢাকায় দেয়া হচ্ছে। এতে দেশের মধ্যাঞ্চলের গ্যাস সরবরাহের পরিমাণ কিছুটা হলেও বেড়েছে। তবে সঙ্কটের পুরো সমাধান হয়নি।

সারাদেশে এখন দৈনিক গ্যাসের চাহিদা রয়েছে তিন হাজার ৮শ’ মিলিয়ন ঘনফুট। এর মধ্যে দৈনিক সরবরাহ হচ্ছে তিন হাজার ২শ’ মিলিয়ন ঘনফুট। অর্থাৎ এখনও ৬শ’ মিলিয়ন ঘনফুট সরবরাহে ঘাটতি রয়েছে । তবে সরকার চেষ্টা করছে আমদানি করে এ বছরের মধ্যেই ঘাটতি কমিয়ে আনতে।