পতন যেন থামছেই না শেয়ারবাজারে

0
76
প্রিন্ট

পতন থামছেই না শেয়ারবাজারের। যত দিন যাচ্ছে পতনের ধারাবাহিকতা তত বাড়ছে। এই নিয়ে টানা ১১ সপ্তাহ ধরে সূচক কমছে ঢাকার শেয়ারবাজারে। এর আগে ২০১০ সালেও একটানা এত পতন ঘটেনি সূচকের। সে সময় হয়ত দুই সপ্তাহ পড়েছে আবার এক সপ্তাহ বেড়েছে। কিন্তু এবার গত ১১ সপ্তাহেই টানা পতন রয়েছে।

গতকাল সোমবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক কমে আরও নিচে নেমে গেছে। একইসঙ্গে কমেছে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সূচকও। তবে ডিএসইতে টাকার পরিমাণে লেনদেন আগের দিন থেকে বেড়েছে।

জানা গেছে, ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৬২ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৩৭২ পয়েন্টে। যা ১১ সপ্তাহের মধ্যে সর্বনিম্ন। এর আগে ২০১৮ সালের ২৬ ডিসেম্বরের  চেয়ে কমে অবস্থান করছিল ডিএসইএক্স। ওই দিন ডিএসইএক্স ছিল ৫ হাজার ৩৪৯ পয়েন্টে। অপর দুই সূচকের মধ্যে শরিয়াহ সূচক ১৮ পয়েন্ট ও ডিএসই-৩০ সূচক ১৮ পয়েন্টে কমে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ১২৪০ ও ১৯২৪ পয়েন্টে।

ডিএসইতে টাকার পরিমাণে লেনদেন হয়েছে ৪১৮ কোটি টাকার। যা আগের দিন থেকে ৮৮ কোটি টাকা বেশি। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৩৩০ কোটি টাকার।

এদিন ডিএসইতে ৩৪৬টি প্রতিষ্ঠান লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এর মধ্যে শেয়ার ও ইউনিট দর বেড়েছে ৪৫টির  এবং দর কমেছে ২৭৩টির এবং শেয়ার দর অপরিবর্তিত রয়েছে ২৮টির প্রতিষ্ঠানের।

ডিএসইতে টাকার পরিমাণে সর্বোচ্চ লেনদেন হয়েছে ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকোর। কোম্পানিটির ৫৭ কোটি ৫৯ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। দ্বিতীয় স্থানে গ্রামীণফোন ২২ কোটি ৬৬ লাখ টাকার লেনদেন এবং ১৭ কোটি ৩৩ লাখ টাকা লেনদেনে তৃতীয় স্থানে উঠে এসেছে ইউনাইটেড পাওয়ার। লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসা অন্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে রয়েছে- ফরচুন সুজ, ইস্টার্ন ক্যাবল, মুন্নু সিরামিক, স্কয়ার ফার্মা, ডেল্টা ব্র্যাক হাউজিং, ডাচ-বাংলা ব্যাংক এবং বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল।