ব্যাংক থেকে সরকারের ঋণ গ্রহন কমেছে

0
38
প্রিন্ট

সরকারি ভাবে ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে ঋণ গ্রহণের পরিমাণ কমেছে। উচ্চ সুদের সঞ্চয়পত্র থেকে লক্ষ্যমাত্রার অতিরিক্ত ধারের কারণে ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে নেওয়া নিট ঋণের পরিমাণ কমেছে। বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, চলতি অর্থবছরে সরকার ব্যাংকগুলোকে ১ হাজার ২৫৫ কোটি ৮৩ লাখ টাকা ফেরত দিয়েছে।

চলতি মাসের ৭ এপ্রিল পর্যন্ত ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে সরকারের নিট ঋণের পরিমান দাঁড়িয়েছে ৮৭ হাজার ১ কোটি টাকা। গত বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত এ ঋণের নিট পরিমাণ ছিল ৮৮ হাজার ২৫৭ কোটি ৬৭ লাখ টাকা।

চলতি অর্থবছরের শুরুরদিকে সরকার ব্যাংক থেকে ৯ হাজার ৪৫৫ কোটি টাকা ঋণ নিয়েছিল এবং গত তিন মাসে ব্যাংকগুলোকে ১০ হাজার ৭১০ কোটি টাকা পরিশোধ করেছে। বাজেটের একটি বড় অংশই ব্যয় হচ্ছে ঋণ পরিশোধে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ব্যাংকঋণের পরিবর্তে সঞ্চয়পত্রের মাধ্যমে ঋণগ্রহণ সুদব্যয় বাড়িয়ে তুলবে, যা সরকারের জন্য বোঝা হয়ে দাঁড়াবে। বর্তমানে সঞ্চয়পত্রে সুদের হার ১১.৪ শতাংশ থেকে ১১.৭৬ শতাংশ, যেখানে সরকার ব্যাংক থেকে সর্বোচ্চ ৮ শতাংশ হারে ঋণ নিতে পারে।

২০১৮-১৯ অর্থবছরের জন্য ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা করে সরকার। যেখানে বাজেট ঘাটতি হচ্ছে ১ লাখ ২৫ হাজার ২৯৩ কোটি টাকা। ঘাটতি পূরণে অভ্যরীণ উৎস থেকে ৭১ হাজার ২২৬ কোটি টাকা নেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। এর মধ্যে শুধু ব্যাংক খাত থেকেই নেওয়া হবে ৪২ হাজার ৩০ কোটি টাকা। এর বাইরে ২৯ হাজার ১৯৭ কোটি টাকা সঞ্চয়পত্র থেকে সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে।

চলতি অর্থবছরের আট মাসে সঞ্চয়পত্র থেকে সরকার ৩৩ হাজার ৬০২ কোটি টাকা সংগ্রহ করেছে, যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৬ হাজার ৪০৫ কোটি টাকা বেশি। বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানান, সরকার উচ্চ আয়ের ঋণ দিয়ে স্বল্প আয়ের ঋণ পরিশোধ করছে।এতে করে চলতি অর্থবছরে সরকারের সুদব্যয় বাড়বে। বাজেটে অভ্যন্তরীণ ঋণের সুদবাবদ ৪৮ হাজার ৩৭৭ কোটি টাকা পরিশোধের লক্ষ্যমাত্রা ছিল, যা আগের অর্থবছরে ছিল ৩৩ হাজার ৪০৪ কোটি টাকা।