ব্রুনাইয়ে বাংলাদেশী শ্রম বাজার হারানোর সঙ্কা

প্রিন্ট

ব্রুনাইয়ের বিভিন্ন কোম্পানি থেকে জাল ভিসা সংগ্রহ করে বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নিচ্ছে দালালদের একটি চক্র। এমন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে প্রায় এক সপ্তাহ ধরে ঢাকায় ব্রুনাই দারুস সালামের হাইকমিশন বাংলাদেশি কর্মীদের চাকরি ভিসার আবেদন গ্রহণ বন্ধ রাখে। হাইকমিশন সূত্র এসব তথ্য নিশ্চিত করেছে।

সূত্র জানায়, বাংলাদেশি দালালদের সহযোগিতায় ব্রুনাইয়ের কিছু কোম্পানি জাল ভিসা দিচ্ছে। এ কারণে এ দেশের শ্রমিকদের চাকরির ভিসা আবেদন সাময়িকভাবে বন্ধ করে দিয়েছিল ব্রুনাই কর্তৃপক্ষ।

গত ৪ আগস্ট থেকে ব্রুনাইয়ের বাংলাদেশি শ্রমিকদের ভিসা আবেদন গ্রহণ বন্ধ করে দেশটির হাইকমিশন। এক সপ্তাহ বন্ধ রেখে গত সপ্তাহ থেকে ফের আবেদন গ্রহণ চালু করে তারা।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, জাল ভিসা নিয়ে টাকা খরচ করে ব্রুনাইয়ে পৌঁছলেও বাংলাদেশি শ্রমিকরা সেখানে কোনো চাকরি পাচ্ছেন না। ফলে হতাশার মধ্যে পড়ছে তারা। কর্মহীন হয়ে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরছে।

জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর তথ্য অনুসারে, ১৯৯২ সাল থেকে এ পর্যন্ত ৭৩ হাজারের বেশি বাংলাদেশি ব্রুনাইয়ে চাকরি নিয়েছেন। বর্তমানে দেশটিতে প্রায় ৩০ হাজার বাংলাদেশি শ্রমিক কাজ করছে, যাদের বেশিরভাগ নির্মাণ খাতে।

বাংলাদেশ দূতাবাসের এক কর্মকর্তা জানান, বাংলাদেশ থেকে কর্মী পাঠানোর ক্ষেত্রে দালালদের দৌরাত্ম্যের কারণে ব্রুনাইয়ের শ্রমবাজার হারাতে পারে বাংলাদেশ। দালালরা এতই শক্তিশালী যে, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো থেকে ছাড়পত্র ছাড়াই ব্রুনাইয়ে শ্রমিক পাঠায় তারা।

২০১৬ সালের আগ পর্যন্ত ব্রুনাইয়ে কোনো বিদেশি নাগরিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলতে পারত না। ওই বছরের শেষ দিকে দেশটির সরকার স্থানীয়দের সাথে যৌথ মালিকানায় বিদেশিদের কোম্পানি খোলা ও ব্যবসা করার অনুমতি দেয়।

ফলে ব্রুনাইয়ে বাংলাদেশিরা তিন হাজারের বেশি কোম্পানি চালু করে। বাংলাদেশি মালিকানাধীন কোম্পানির পাশাপাশি অসংখ্য অবাঙালি মালিকানাধীন কোম্পানি ব্রুনাইয়ের লেবার ডিপার্টমেন্ট ও ইমিগ্রেশন ডিপার্টমেন্টের যোগসাজশে পর্যাপ্ত কর্মসংস্থান না থাকা সত্ত্বেও প্রচুর ‘প্রবাসী শ্রমিক ভিসা’ বের করে এবং বাংলাদেশ থেকে এ দেশে শ্রমিক আমদানি করে। ফলে কর্মহীন উদ্বৃত্ত শ্রমিকের কারণে এ দেশের শ্রমবাজারে বেতন, শ্রমিক সুবিধা, ইন্স্যুরেন্স সুবিধা ইত্যাদি ক্ষেত্রে ব্যাপক ধস নামে।