আগামী ১৬ মে পর্যন্ত যাত্রীবাহী ফ্লাইট বন্ধ ঘোষণা

করোনাভাইরাস দুর্যোগে দেশের অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট চলাচল বন্ধের সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে। আগামীকাল ৭ মে থেকে তা বাড়িয়ে আগামী ১৬ মে পর্যন্ত এই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হলো। মঙ্গলবার বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের জারি এক নির্দেশে এ তথ্য জানানো হয়। যদিও এয়ারলাইন্সগুলোকে অভ্যন্তরীণ রুটের ফ্লাইট পরিচালনার আগামী ১০ মে থেকে সীমিত আকারে প্রস্তুতি নিতে বলা হলেও আপাতত ফ্লাইট চলাচলের কোন সম্ভাবনা নেই।

এছাড়া কার্গো, ত্রাণ সাহায্য, এয়ার অ্যাম্বুলেন্স, জরুরি অবতরণ ও স্পেশাল ফ্লাইট পরিচালনার কার্যক্রম চালু থাকবে। মঙ্গলবার (৫ মে) বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

বেবিচক চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মফিদুর রহমানের বরাত দিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, আন্তর্জাতিক ফ্লাইটে যাত্রী পরিবহনের (সিডিউল প্যাসেঞ্জার ফ্লাইট)ক্ষেত্রে বিমান চলাচল নিষেধাজ্ঞা আগের মতো বাহরাইন, ভুটান, হংকং, ভারত, কুয়েত, মালয়েশিয়া, মালদ্বীপ, নেপাল, ওমান, কাতার, সৌদি আরব, শ্রীলঙ্কা, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড, তুরস্ক, ইউএই, ইউকে -এর সাথে বিদ্যমান বিমান চলাচল রুটের ক্ষেত্রে কার্যকর হবে। একই সঙ্গে অভ্যন্তরীণ যাত্রী পরিবহনের ক্ষেত্রে বিমান চলাচল নিষেধাজ্ঞা আগামী ১৬ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

উল্লেখ্য করোনা দুর্যোগের দরুণ গত ২১ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত যুক্তরাজ্য, চীন, হংকং, থাইল্যান্ড ছাড়া সব দেশের সঙ্গে যাত্রীবাহী সব বিমান সংস্থার ফ্লাইট চলাচল বন্ধের ঘোষণা দিয়েছিল বেবিচক। এরপর আরেকটি আদেশে এই সময়সীমা আরও সাতদিন বাড়িয়ে ৭ এপ্রিল পর্যন্ত নির্ধারণ করা হয়েছিল। এই নিষেধাজ্ঞা ১৪ তারিখ পর্যন্ত বহাল রাখা হয়। পরের ধাপে নিষেধাজ্ঞা বাড়িয়ে ৩০ এপ্রিল এবং পর্যায়ক্রমে ৭ মে পর্যন্ত করা হয়। তবে এবারের পর আর এ নিষেধাজ্ঞা বহাল নাও করা হতে পারে। ঈদকে সামনে রেখে অন্তত ১৬ মে থেকে সীমিত আকারে অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট চালানোর জন্য প্রস্তুতি নিয়ে রাখারও নির্দেশনা রয়েছে।

image_printপ্রিন্ট করুন
শেয়ার করুনঃ