পাওয়ারপ্যাক হোল্ডিংস লিঃ ও তাদের কারিগরি সহযোগী কাজিমা কর্পোরেশন, জাপান, হেরিম আর্কিটেক্ট, কোরিয়া, আর্কেটাইপ এর সংগে রাজউক এর যৌথ সভা অনুষ্ঠিত

২৫শে সেপ্টেম্বর ২:৩০ মিনিটে রাজউক বোর্ড রুমে সিবিডি আইকোনিক টাওয়ার প্রকল্পের অগ্রগতি পর্যোলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। রাজউক চেয়ারম্যান ডঃ সুলতান আহ্মেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় রাজউক এর পূর্র্বাচল নিউ টাউন প্রকল্প পরিচালক ইঞ্জি: উজ্জল মল্লিক, মেম্বার ডেভেলপমেন্ট মেজর (অবঃ) ইঞ্জি: সামসুদ্দিন হায়দার চৌধুরী, মেম্বার প্লানিং জনাব সৈয়দ নূর আলম, মেম্বার এস্টেট এন্ড ল্যান্ড জনাব আজাহারুল ইসলাম খান, মেম্বার ডেভেলপমেন্ট কন্ট্রোল জনাব আবুল কালাম আজাদ, চীফ ইঞ্জিঃ রিহানুল ফেরদৌস সহ অন্যান্য কর্মকর্তাগণ এবং সিকদার গ্রুপ ও কাজিমা কর্পোরেশন, জাপানের পক্ষে সিওও এবং পরিচালক অপারেশন জনাব সৈয়দ কামরুল ইসলাম মোহন, স্ট্রেটেজিক প্লানিং পরিচালক জনাব নাইমুজ্জামান মুক্তা, বিজনেস ডেভেলপমেন্টের পরিচালক জনাব মোহাম্মদ সালাহ্উদ্দিন, উপদেষ্ঠা মিঃ জুলিয়ান পিটন এবং একটি আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞ দল উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য পূর্বাচল সেন্টাল বিজনেজ ডিস্ট্রিক নামে রাজউকের আইকনিক টাওয়ার নির্মানের কাজটি আন্তর্জাতিক নিলামের মাধ্যমে সিকদার গ্রুপ ও কাজিমা কর্পোরেশন জাপান যৌথভাবে নির্বাচিত হয়। ইতিমধ্যেই প্রকল্পটি সফলভাবে নির্মানের লক্ষ্যে উল্লেখযোগ্য সমীক্ষা প্রতিবেদন রাজউকে জমা দেয়া হয়েছে। প্রকল্পের খসড়া মাস্টার প্লাান ও ডিজাইনের জন্য রাজউক ʻʻ২০১৯ এশিয়ান টাউনস্কেপ জুরিʻসʼ পুরস্কার লাভ করে, যা দেশের অবকাঠামো নির্মানের ইতিহাসে একটি উল্লেখযোগ্য ঘটনা।

এই ঐতিহাসিক টাওয়ারের আর্কিটেক্ট হিসাবে পৃথিবী বিখ্যাত হেরিম আর্কিটেক্ট কাজ করছে। হেরিম পৃথিবীর সেরা সাতটির একটি এবং কোরিয়ার শ্রেষ্ঠ আর্কিটেক্ট প্রতিষ্ঠান। হেরিম ছাড়াও এই কাজের সাথে যুক্ত আন্তর্জাতিক খ্যাত সম্পন্ন প্রতিষ্ঠান পিডাব্লিউসি, আর্কেটাইপ এর প্রতিনিধিগণ সভায় উপস্থিত ছিলেন।

সভায় রাজউক চেয়ারম্যান বলেন- এটা সত্যিই গর্বের এই আইকনিক টাওয়ারে প্রতিফলিত হচ্ছে বঙ্গ বন্ধুর নেতৃত্বে আমাদের ৫২’র ভাষা আন্দোলন, ৭১’র মহান মুক্তিযুদ্ধ, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র লিগ্যাসি। আমি আনন্দিত সিকদার গ্রুপ ও কাজিমা কর্পোরেশন অত্যন্ত গুরত্বের সাথে এই কাজটি এগিয়ে নিচ্ছে। আমি তাদের ধন্যবাদ দিতে চাই তারা প্রস্তবিত সময়সীমার আগেই কাজ এগিয়ে নিচ্ছে।

আমি আশা করব ২০২০ এর মূল কাজ শুরু কওে ২০২৪ এর মধ্যে দৃশ্যমান অগ্রগতি যেন হয়। আমরা ইতিমধ্যেই সর্বজন শ্রদ্ধেয় অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরী স্যারকে অনুরোধ করছে এই কাজে পরামর্শ প্রদানে। আমি আশা করবো রাজউকের সাথে যথাযথ সমন্বয় বওে আমাদেও স্বপ্নের এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হবে।

image_printপ্রিন্ট করুন
শেয়ার করুনঃ