খেলাপি ঋণের কারণে বিপাকে পড়েছে সরকারি-বেসরকারি খাতের ৯ ব্যাংক

প্রিন্ট

যথাযথ যাচাই-বাছাই না করেই ঋণ বিতরণের কারণে বাড়ছে খেলাপি ঋণের পরিমান। ফলে বিপাকে পড়েছে সরকারি-বেসরকারি খাতের ৯ ব্যাংক। এসব ব্যাংকের বিতরণকৃত ঋণের ৪০-৯৭ শতাংশই খেলাপি হয়েছে। যার কারণে কোন কোন ব্যাংক মূলধনও ভেঙে খাচ্ছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ পরিসংখ্যানে এ তথ্য পাওয়া গেছে। ব্যাংকগুলোর মধ্যে ৪টি সরকারি, ৪টি বেসরকারি ও একটি বিদেশি খাতের ব্যাংক রয়েছে।

ব্যাংকগুলো হচ্ছে, রাষ্ট্রায়ত্ত বেসিক ব্যাংক, বিডিবিএল, জনতা ও সোনালী ব্যাংক, বেসরকারি খাতের রয়েছে বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক, আইসিবি ইসলামী ব্যাংক, পদ্মা ব্যাংক ও এবি ব্যাংক এবং বিদেশি খাতের ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান (এনবিপি) রয়েছে এ তালিকায়।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর মধ্যে বেসিক ব্যাংক সবচেয়ে খারাপ অবস্থায় রয়েছে। ব্যাংকটির বিতরণ করা ঋণের ৬০.৫০ শতাংশ খেলাপি। চলতি বছরের জুন শেষে বেসিক ব্যাংকের ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৫ হাজার ৬৪ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি ৯ হাজার ১১৩ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। ব্যাংকটির প্রভিশন ঘাটতিও সবচেয়ে বেশি, যার পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৩ হাজার ৭৩ কোটি ৫০ লাখ টাকা। বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেডের (বিডিবিএল) অবস্থাও নাজুক। প্রতিষ্ঠানটির এক হাজার ৫৯১ কোটি ৩৬ লাখ টাকা বিতরণ করা ঋণের ৫৫.৯৫ শতাংশ বা ৮৯০ কোটি টাকা খেলাপি।

পরিমাণের দিক থেকে সবচেয়ে বেশি খেলাপি ঋণ জনতা ব্যাংকে। প্রতিষ্ঠানটির বিতরণ করা মোট ঋণের ৪২.৯৬ শতাংশ বা ২০ হাজার ৯৯৪ কোটি ৯০ লাখ টাকা খেলাপি। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ খেলাপি ঋণ থাকা ব্যাংক হলো সোনালী ব্যাংক। এ ব্যাংকের খেলাপি ঋণের পরিমাণ ২৯.৪৬ শতাংশ বা ১২ হাজার ১৯৫ কোটি টাকা। জুন শেষে ব্যাংকটির প্রভিশন ঘাটতির এক হাজার ৯৪২ কোটি ২০ লাখ।

বেসরকারি ব্যাংকগুলোর মধ্যে আইসিবি ইসলামী ব্যাংকের মোট বিতরণ করা ঋণের ৮২.৬৪ শতাংশ খেলাপি হয়েছে। এর মধ্যে ৮০.৭০ শতাংশ আদায় অযোগ্য হয়ে পড়েছে। ব্যাংকটির ৮৫৫ কোটি ৮২ লাখ টাকা মোট ঋণের মধ্যে ৭০৭ টাকা খেলাপি। পদ্মা ব্যাংকের (ফারমার্স ব্যাংক) মোট ঋণের ৬৬ শতাশ খেলাপি। জুন শেষে মোট ৫ হাজার ৪৬৬ কোটি টাকা ঋণের মধ্যে ৩ হাজার ৬১১ কোটি টাকাই খেলাপি হয়ে পড়েছে। ব্যাংকটি বাঁচানোর জন্য রাষ্ট্র খাতের পাঁচটি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে মূলধন জোগান দেয়া হয়েছে। বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংকের মোট ঋণের ৪৪.৫৯ শতাংশই খেলাপি হয়ে গেছে। ব্যাংকটি ২ হাজার ২৩৬ কোটি টাকা ঋণের মধ্যে ৯৯৭ কোটি টাকাই খেলাপি ঋণ। ৪৩.৬ শতাংশই আদায় অযোগ্য ঋণ। ফলে ব্যাংকটি ৫১১ কোটি টাকার প্রয়োজনীয় প্রভিশন সংরক্ষণে ব্যর্থ হয়েছে। জুন শেষে এবি ব্যাংকের মোট বিতরণ করা ঋণের ২৮.১১ শতাংশ খেলাপি হয়ে গেছে। ব্যাংকটির প্রভিশন ঘাটতি হয়েছে ৩ হাজার ৫৯৩ কোটি টাকা।

এদিকে আলোচিত সময়ে শতংশের দিক থেকে সবচেয়ে খারাপ অবস্থায় রয়েছে বিদেশি ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান (এনবিপি)। ব্যাংকটির মোট ঋণের ৯৭.৬৪ শতাংশিই খেলাপি ঋণ। এক হাজার ৪২৩ কোটি ৮২ লাখ টাকা ঋণের মধ্যে খেলাপি দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৩৯০ কোটি টাকা।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, জুন শেষে ব্যাংক খাতের খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে প্রায় ১ লাখ ১২ হাজার ৪২৫ কোটি টাকা। আগের বছরের জুন শেষে খেলাপি ঋণ ছিল ৯০ হাজার ৩৭২ কোটি টাকা। এ হিসাবে গত এক বছরের ব্যবধানে খেলাপি ঋণ বেড়েছে প্রায় ২২ হাজার কোটি টাকা। আগের প্রান্তিক জানুয়ারি থেকে মার্চ এ তিন মাসে খেলাপি ঋণ বেড়েছিল প্রায় ১৭ হাজার কোটি টাকা।